কে বলে বেকার ? দেশে চলছে তীব্র শ্রমিক সংকট !

68

অনিন্দ্যবাংলা: দেশে এত বেকারের কথা বলা হলেও, আসন্ন ধানকাটা মৌসুমে খুজেঁ পাওয়া যাচ্ছে না কাটারি শ্রমিক। সিরাজগঞ্জ জেলার তাড়াশ উপজেলায় এক মণ ধানের বিনিময়ে পাওয়া যাচ্ছে একজন শ্রমিক একদিনের জন্য। তীব্র শ্রমিক সংকট দেখা দিয়েছে উপজেলায়। এই সংকট এখন দেশের সর্বত্র চলছে। অনেকের ধারণা অশিক্ষিত বেকারদের গার্মেন্টে চাকুলী ও ব্যবসায় বিনিয়োগের ফলে আজকের এই কৃষি শ্রমিক সংকট ।

ধান কাটা মৌসুমে একজন শ্রমিকের মজুরি ছয় থেকে আটশত টাকা দিতে হচ্ছে। আর প্রতিমণ ধানের দাম ৫৫০ টাকা ৬শত টাকা। কৃষকদের অভিযোগ ধানের নায্যমূল্য তারা পাচ্ছেন না। ধানের দাম না বাড়ায় তাদের লোকসান গুণতে হচ্ছে অনেক।

উপজেলার তাড়াশ সদর গ্রামের কৃষক রেজাব আলী জানান, বোরো ধান চাষে বীজ, সার, কিটনাশক, চারা লাগানো, জমি পরিষ্কার করা, ধান কাটা শ্রমিক খরচসহ প্রতিমণ ধানে উৎপাদন খরচ পড়ছে কমপক্ষে নয়শত থেকে এক হাজার টাকা।

এদিকে উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজারগুলোতে প্রকার ভেদে প্রতিমণ ধান বিক্রি হচ্ছে ৫২০ থেকে ৬শত টাকা আর ধান কাটা শ্রমিকের মজুরি হচ্ছে ৬০০ থেকে ৭০০ টাকা দিয়ে। এতে করে প্রতিমণ ধান লোকসানে বিক্রি করতে হচ্ছে।

তাড়াশ উপজেলার নওগাঁ ইউনিয়নের বানিয়াবহু গ্রামের কৃষক আফজাল হোসেন বলেন, মাঠে ধান আবাদ করা ছাড়া আমাদের কোন উপায় নেই তাই বাধ্য হয়ে লোকসান হলেও ধানের আবাদ করতে হয়। সরকার সরাসরি যদি কৃষকদের কাছ থেকে ধান নেয় তাহলে লোকসান কম হবে।

তাড়াশ উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ সাইফুল ইসলাম বলেন, চলতি মৌসুমে এ উপজেলায় ইরি বোরো চাষের লক্ষ্য মাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ২২ হাজার ৭৫০ হেক্টর জমি। কিন্তু লক্ষমাত্রা অর্জন হয়েছে ২৩ হাজার হেক্টর জমি।