বেতন বৈষম্যের দাবীতে ময়মনসিংহে সরকারী কর্মচারীদের মানববন্ধন

116

আব্দুল্লাহ আল-আমীন, ময়মনসিংহ : ময়মনসিংহে সরকারী কর্মচারীদের পদবী ও বেতন বৈষম্য নিরোসনের দাবীতে বাংলাদেশ প্রশাসনিক কর্মকর্তা বাস্তবায়ন ঐক্য পরিষদের ব্যনারে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। ২০ এপ্রিল, শনিবার সকাল ১০ টায়, ময়মনসিংহ বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয়ের সামনে পূর্বঘোষিত কর্মসূচি অনুযায়ী “স্বাধীন দেশে স্বাধীন মত সকল দপ্তরে অভিন্ন পদ” প্রতিপ্রাদে মানববন্ধন করে বাংলাদেশ প্রশাসনিক কর্মকর্তা বাস্তবায়ন ঐক্য পরিষদ,ময়মনসিংহ বিভাগীয় কমিটি।

জানা যায়, বাংলাদেশ সচিবালয়ের ভিতরে ও বাইরে সরকারি বিভিন্ন দপ্তরে প্রধান সহকারী, উচ্চমান সহকারী, সহকারী ইত্যাদি পদের পদবি ও বেতন স্কেল এক ও অভিন্ন হওয়া সত্ত্বেও তৎকালীন সরকার ১৯৯৫, ৯৭, ৯৯ সালের প্রজ্ঞাপন দিয়ে শুধু সচিবালয়ে বর্ণিত পদগুলো আপগ্রেড করার ফলে সরকারি দপ্তরগুলোর মধ্যে পদবি ও বেতনবৈষম্যের সৃষ্টি হয়।

সংগঠনের বিভাগীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক মোঃ জিয়াউল কবীর বলেন” পাবলিক সার্ভিস কমিশন, বিশ্ববিদ্যালয় মন্জুরী কমিশন, বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্ট, বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশনে বর্ণিত পদগুলো আপগ্রেড করা হয়েছে, কিন্তু অন্যান্য দপ্তরে বর্ণিত পদবিগুলো অদ্যাবধি পূর্বাবস্থায়ই রয়ে গেছে”।

তিনি আরো বলেন” ইতোমধ্যে সরকার উচ্চমান সহকারী, প্রধান সহকারী সমস্কেল ও নিম্ন স্কেলের কর্মচারীদের মধ্যে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক, ব্লক সুপার ভাইজার, ডিপ্লোমা প্রকৌশলী, নার্স, অডিটর, খাদ্য পরিদর্শক, পুলিশের এসআই ইত্যাদি পদ আপগ্রেড করায় প্রশাসনিক ক্রমবিন্যাস ভেঙ্গে পড়েছে এবং নিম্ন শিক্ষাগত যোগ্যতাসম্পন্ন ব্যক্তিদের উচ্চপদে আসীন করায় পরর্বতী প্রজন্ম উচ্চশিক্ষা গ্রহনে আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছে”। তিনি অভিযোগ করে বলেন, প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরের নির্দেশনা, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় কমিটির ৩২ ও ৩৩ তম বৈঠকের সিদ্ধান্ত এবং ১০ম জাতীয় সংসদে বিরোধী দলীয় নেতার এতদবিষয়ে জাতীয় সংসদে বিষয়টি বাস্তবায়নের জন্য অনুরোধ সত্ত্বেও কেন বৈর্ষম্য দূর হচ্ছে না তা বোধগম্য নয়।

এ সময় প্রশাসনিক কর্মকর্তা বাস্তবায়ন ঐক্য পরিষদের ময়মনসিংহ বিভাগীয় কমিটির সভাপতি, জযনাল আবেদীন, সিনিয়র সহ-সভাপতি শাকিল আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক জিয়াউল কবিরসহ কমিটির অনেকই উপস্থিত ছিলেন।

সরকারী কর্মচারীদের বিভিন্ন সংগঠন এই দাবীর সাথে সংহতি প্রকাশ করে কর্মচারীদের পদবি ও বেতনবৈষম্য নিরসনের জন্য প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত হস্তক্ষেপ কামনা করেন। মানববন্ধন শেষ করার পর বিভাগীয় কমিশনারের নিকট তাঁরা স্মারকলিপি প্রদান করেন।