Logo

নতুন উফশী জাতের বেগুনী ধান বদলে দিবে কৃষকের ভাগ্য!

অনিন্দ্যবাংলা
রবিবার, মে ১৭, ২০২০
  • শেয়ার করুন

নূরুজ্জামান সরকার নীহার বকুল: ময়মনসিংহ – শেরপুর হাইওয়ে রোডের মধুপুর বাজারের দক্ষিণ দিকের পশ্চিম প্বার্শ্বে বেগুনী রঙের পাতা বিশিষ্ট ধানে মনকেঁড়ে নেয় তারাকান্দা ইউনিয়নের আবাল-বৃদ্ধ-বনিতার।
বকশীমূল গ্রামের কৃষক আবুল হাসিম সরকারের ৩০ শতাংশ জমিতে প্রথমবারের মত বেগুনী পাতা রঙের ধান চাষ করা হয়েছে। ব্যতিক্রমী ও চিত্তাকর্ষক বেগুনী রঙের ধান দেখতে মানুষ প্রতিদিন দূরদুরান্ত থেকে আসছে কৃষকের জমিতে। ইতোমধ্যে বেগুনী ধানের ফলন দেখে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন কৃষি কর্মকর্তারাসহ সংশ্লিষ্ট প্রদর্শনীর সকলেই।
এই জাতের ধান সম্পর্কে জানা যায় যে, এ জাতীয় ধানে অধিক মাত্রায় অ্যান্থোসোয়ানিন ও অ্যান্টি-অক্সিডেন্টের উপস্থিতির কারণে এই ধানের পাতার রঙ বেগুনী হয়। আর অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট মানবদেহের বার্ধক্য প্রতিরোধ,ক্যান্সারের ঝুঁকি,ডায়বেটিস ও আ্যালজাইমার রোগের ঝুঁকি কমাতে সহায়ক।
কৃষি তথ্য সূত্রে জানা যায়, এ জাতের ধান ব্রি-ধান ২৯ এর চেয়ে ৭ দিন আগে পাকে, এ ধানের চালে বিটামিন বি১ ও থায়োমিন বিদ্যমান এবং এ জাতীয় ধান চাষে অন্য ধানের চেয়ে পোকার আক্রমণ কম হওয়ায় কৃষকের কাছে জনপ্রিয়তা লাভ করবে।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা রকিব আল রানা বলেন, এ জাতের ধানের নাম মাদ্রাজী রাইস,ধানের পাতার রং বেগুনী এবং ধানের রঙ সোনালী, প্রতি হেক্টরে ফলন ৬.৫০টন। ফলন উফশী ধানের মতোই,খেতেও সুস্বাদু, তবে ধানের চালে পুষ্টিমান বেশি ও পোকার আক্রমন কম হওয়ায় অনেকইে এই ধানের আবাদ করার আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন।
এ ব্লকের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মোঃ মতিউর রহমান বলেন,কৃষি উৎকর্ষ সাধনে আমরা প্রতিনিয়তই আধুনিক কৃষি প্রযুক্তি ব্যবহার,হস্তান্তর ও নতুন জাতের আবাদ করতে কৃষকদের উৎসাহিত করে থাকি।তারই ধারাবাহিকতায় এ জাতের চাষাবাদে কৃষককে উদ্বুদ্ধ করেছিলাম।
কৃষক আবুল হাসিম সরকার বলেন, কৃষি কর্মকর্তার উৎসাহে আমি এ জাতের ধান চাষ করেছি। উক্ত ধান চাষ করে আমি ভালো ফলন পেয়েছি, আগামীতে আরো বেশি জমিতে এই ধান চাষ করব। উক্ত ধানের আশাতীত ফলনে তিনি সন্তোষ প্রকাশ করেন। বিজ্ঞানীরা ধারনা করছেন চালের রং বেগুনী হলে ধানটি উচ্চমূল্যের হবে। এ ধান চাষে বদলে যেতে পারে কৃষকের ভাগ্য।
সহযোগীতায়:-
ছবি:মফিজউদ্দিন ও চিত্রা শিকারী।
তথ্য :মতিউর রহমান ও আবুল হাসিম।